শুক্রবার, মে ০৪, ২০১২

এক বি-রা-ট সুসংবাদ :D


ছোটবেলায় সিনেমায় দেখেছিলাম নায়ক জসিম দৌড়ে দৌড়ে এসে হুমড়ি খেয়ে পড়ে বলছে, মা, মা, দেখো,আমি ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হয়েছি!

জীবনের প্রায় মাঝবরাবর এসে, আমি একসময়ের রবিউল থেকে শরীর-স্বাস্থ্যে মাশাল্লাহ জসিমে এসে দাঁড়িয়েছি। এই ‘সুবিশাল’ প্রাপ্তি উদযাপনেরই সম্ভবত একটা সুযোগ করে দিলো রকমারি ডট কম। তাদের কল্যাণে আমি জসিমের মতই আপ্রাণ দৌড়ে এসে হুমড়ি খেয়ে পড়ে বলতে পারছি, জনগণ দেখো দেখো, আমি সেকেন্ড হয়েছি। :D

অনেক ভূমিকা হলো, এবারে তাহলে আসল ব্যাপার বলেই ফেলি। ঘটনা হলো এই যে রকমারি ডট কমের আয়োজিত রিভিউ প্রতিযোগে আমি অংশগ্রহণ করেছিলাম, একটু আগেই তাঁরা ইমেইল মারফত জানালো যে আমার করা রিভিউগুলো তাঁদের বিবেচনায় দুই নম্বুরি প্রতীয়মান হয়েছে। থুক্কু, আই মিন, প্রতিযোগিতায় ২য় স্থান অর্জন করেছে। এই শুনে আনন্দে আত্মহারা হয়ে আমার মুখের হা বড় হতে হতে কপাটি লেগে গেছে!

রকমারি ডট কম সম্পর্কে একটুখানি বলি, ওয়েবসাইটটি খুব সম্প্রতিই আত্মপ্রকাশ করেছে। এবং এই রকমারির রকম-সকম দেখে আমি মোটামুটি বিমোহিত। বাংলাদেশের ভেতরে এরা ঘরে বসে বই পাবার চমৎকার সুযোগ করে দিচ্ছে। ক্রেডিট কার্ড বা অনলাইনে পে করার সুবিধা যেখানে অপ্রতুল, সেখানে তারা, বলা যায় বেশ অভিনব ও সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছে, বইয়ের মূল্য পরিশোধের ব্যবস্থা হিসেবে তারা রেখেছে ক্যাশ অন ডেলিভারি সিস্টেম। অর্থাৎ ফোনে অথবা অনলাইনে অর্ডার দিলে তাঁরা বাড়ির দোরগোড়ায় বই পৌঁছে দিয়ে যাবে, এবং বই হাতে পেলেই কেবল টাকা পরিশোধ করতে হবে।

এই চমৎকার সুবিধা দেখে আমি মনে মনে বেশ হা-পিত্যেশ করেছি। ছোটবেলার কথা বারবারই মনে পড়ে যাচ্ছিলো যখন আমি কুমিল্লায় থাকতাম এবং সারা বছর ধরে অপেক্ষা করতাম একুশের বইমেলার। বছরে একবারই ঢাকায় এসে মনের আনন্দে গাদা গাদা বই কিনে নিয়ে যেতাম। ভাবছিলাম এখন দেশে থাকলে বেশ হতো, ঘরে বসেই মনের ইচ্ছেমতো লিস্ট বানিয়ে রকমারি ডট কম মারফত অর্ডার দিতাম, আর যখন ইচ্ছে তখনই নিজের খুশিমতন বইমেলা বানিয়ে ফেলতাম।

এই জমানার বইপড়ুয়াদের সৌভাগ্যের জন্যে তাই রইলো একরাশ হিংসা, সেই সাথে রকমারি ডট কম-কে জানাই অনেক ধন্যবাদ ও শুভকামনা। তাদের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক। 

কোন মন্তব্য নেই: